Header Ads

মেঘে ঢেকে গেল তারা



"দাদা,আমি বাঁচতে চাই" আর্তিটা আপামর বাঙালির আজও কানে বাজে,'মেঘে ঢাকা তারা' ছবির দৃশ্যটিও ভুলতে পারেনি কেউ।সিনেমাটোগ্রাফার সৌমেন্দু রায়ের কথায়,এক শটেই বাজিমাত করেছিলেন অভিনেত্রী।সেই তারাই মেঘে ঢেকে গেল প্রজাতন্ত্র দিবসের দিন ভোরবেলায়।প্রয়াত হলেন বাংলা চলচ্চিত্র জগতের স্বর্ণযুগের অন্যতম কান্ডারী সুপ্রিয়া দেবী।
১৯৩৩ সালে মায়ানমারে জন্ম।১৯৫২ তে মহানায়কের সাথে প্রথমবার জুটি বেঁধে 'বসু পরিবার' ছবিতে অভিনয়।তারপর আসে তাদের হিট ছবিগুলো,'বাঘবন্দি খেলা','সন্ন্যাসী রাজা','বনপলাশীর পদাবলী',' শুন বর নারী','সোনার হরিণ','মন নিয়ে', 'শুধু একটি বছর', 'কাল তুমি আলেয়া' প্রভৃতি।
কিন্তু সুপ্রিয়াদেবী বাঙালির মনে জায়গা করে নিয়েছেন দুটি কালজয়ী ছবির মাধ্যমে,'মেঘে ঢাকা তারা' আর 'কোমল গান্ধার'।স্বাবলম্বী চরিত্রে অভিনয় করার দিকেই তার ঝোঁক বেশি ছিল।
এছাড়াও 'আম্রপালি','চৌরঙ্গী','সিস্টার','কড়ি দিয়ে কিনলাম' ছবিতে তার অনবদ্য অভিনয় মন কেড়ে নেয় সবার।পরবর্তী কালে উত্তম ঘরণী হিসাবেই থাকতেন।মেগা ধারাবাহিক 'জননী' তে মুখ্য চরিত্রে অভিনয় করেছিলেন তিনি।
২০০৬ সালে শেষ অভিনয় করেন 'নেমসেক' এ।২০১৪ সালে পদ্মশ্রী পান।
রান্না করতে খুব ভালবাসতেন তিনি।'বেণুদির রান্না' মানেই হইহই ব্যাপার ছিল।
তাঁর মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন টলিউডের কলাকুশলীরা।সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়, সাবিত্রী দেবী,মাধবী মুখোপাধ্যায় এর স্মৃতিচারণায় ভেসে উঠেছে তাঁর নানা দিক।মানুষকে আপন করে নিতে পারতেন খুব সহজেই।
মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৮৫ বছর।হঠাৎ হৃদরোগ এসে মেঘে ঢেকে দিল বাংলা চলচ্চিত্র জগতের এই তারাকে যার স্হান পূরণ করা অসম্ভব।
যেখানেই থাকুন, ভালো থাকুন সুপ্রিয়া দেবী।

Written By: Arundhati Das